Dainik Sotter Kontho- দৈনিক সত্যের কণ্ঠ
Dainik Sotter Kontho - দৈনিক সত্যের কণ্ঠ
ঢাকাFriday , 11 August 2023
  • অন্যান্য

তথ্যসংগ্রহকালে সাংবাদিকের মুটোফোন ছিন্তায়, ২ দিন পর মোবাইল ফোন উদ্ধার করলো থানা পুলিশ

নওগাঁর বদলগাছী তে বুলবুল নামে এক সাংবাদিককে তথ্য সংগ্রহের কাজে বাঁধা, মোবাইল ফোন ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনার ২দিন পর ঐ ভুক্তভোগী সাংবাদিকের মুটোফোন উদ্ধার করেছে বদলগাছী থানাপুলিশ।

গত ৮ই আগস্ট মঙ্গলবার ঘটনার দিন রাতে ভুক্তভোগী ঐ সাংবাদিক মেঘনা বাহিনীর কয়েকজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছিলেন। ঘটনার পরে পুলিশ মোবাইল ফোন উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত মোবাইল ফোন বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় বদলগাছী থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আজিজ এর উপস্থিতিতে এসআই নেহার ভুক্তভোগী ঐ গণমাধ্যমকর্মীর হাতে মোবাইল ফোনটি তুলে দেন।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার খোঁজাগাড়ি সোনার পাড়া গ্রামে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার এই ঘটনা ঘটে। এঘটনার প্রতিকার চেয়ে ভূক্তভোগী সংবাদকর্মী বুলবুল আহম্মেদ বুলু বদলগাছি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। বুলবুল এশিয়ান টিভির বদলগাছি উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মিঠাপুর ইউপির বোউলাপাড়া গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে বুলবুল সাংবাদিকতা পেশায় নিয়োজিত। গত মঙ্গলবার বিকেলের দিকে সোর্সের মাধ্যমে জানতে পারে খোঁজাগাড়ী সোনারপাড়া গ্রামের সোহাগ নামে একজনকে মোবাইল চুরির অপরাধে কে বা কাহারা আটকিয়ে রেখেছে। বিষয়টির সত্যতা জানার জন্য বুলবুল সেখানে গিয়ে ছবি ধারণ করতে লাগলে ওই গ্রামের হান্নান হোসেনের ছেলে নাজমুল হোসেন(২২), পরশুরামপুর গ্রামের আতোয়ারের ছেলে মারুফ হোসেন(২২) ও তার মা মেঘনা (৪৩) এবং কসবা গ্রামের হারুন(৩৫) তথ্য সংগ্রহের কাজে বাঁধা প্রদান করে এবং বিভিন্ন ভয়ভীতিসহ খুন জখমের হুমকি ও গালিগালাজ করতে থাকে।

ভূক্তভোগী সাংবাদিক বুলবুল বলেন, আমি সেখানে তথ্য সংগ্রহের কাজে গেলে কিছু বুজে উঠার আগেই বিবাদী মেঘনার হুকুমে অন্যান্য বিবাদীরা আমার কাছে থাকা বিশহাজার টাকার মূল্যে একটি মোবাইল ফোন এবং ফোনের ব্যাকপাটে থাকা নগদ পাঁচহাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এছাড়া আমার মোবাইলে দুটি সিমকার্ড ও একটি মেমোরি কার্ড ছিল। যেগুলো আসামীরা কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে নিয়ে নেয়। তাই আমি বাধ্য হয়ে আইনের আশ্রয় নিয়েছি।

আজ ১০ই আগস্ট বৃহস্পতিবার রাত আটটায় বদলগাছী থানাপুলিশ আমার মোবাইল উদ্ধার করে আমাকে বুঝিয়ে দিয়েছে।

এবিষয়ে অভিযুক্তদের কাছে মুটোফনে জানতে চাইলে তারা বলেন আমাদের মধ্য ভূলবুঝা-বুঝি হয়েছিল। পাহাড়পুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান কিশোর,মথুরাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ রানা,প্যানেল চেয়ারম্যান পরিমল এর প্রচেষ্টায় বাদী-বিবাদী উভয় পক্ষের উপস্থিতে বিষয়টি মিমাংসা হয়েছে।
বদলগাছি থানার এসআই নেহার বলেন, পাহাড়পুর ইউপির খোজাগাড়ি এলাকার ঐ ঘটনার পর ভুক্তভোগী সাংবাদিকের মোবাইল ফোন উদ্ধার করে তাকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।