Dainik Sotter Kontho - দৈনিক সত্যের কণ্ঠ
ঢাকাMonday , 19 June 2023
  • অন্যান্য

তিস্তার পানি বৃদ্ধিতে খুলে দেওয়া হয়েছে ৪৪ গেট

Google News

ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢল ও কয়েকদিনের বৃষ্টিতে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমার ৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় পানি নিয়ন্ত্রণে ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দেওয়া হয়েছে । পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়া সহ দেখা দিয়েছে তিস্তা নদীর পারের ভাঙন । এতে নীলফামারী জেলার জলঢাকা ও ডিমলা এই দুই উপজেলার তিস্তার চরাঞ্চল ও তীরবর্তী এলাকার নিম্নাঞ্চলের অন্তত কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন ।

 

সোমবার( ১৯ জুন) সকাল ৬ টায ডালিয়া তিস্তা নদীর পানি বিপদ সীমার ৭ সেন্টিমিটার উপরদিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে । পরে সকাল ৯ টায় নদীর পানি বিপদ সীমার ৫ সেন্টিমিটার নিচে প্রবাহিত হওয়ার রেকর্ড করা হয়েছে ।

রোববার( ১৮ জুন) বিকেল ৩টায় দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজের তিস্তা নদীর পানিপ্রবাহ রেকর্ড করা হয়েছে ৫১ দশমিক ৮৭ সেন্টিমিটার, যা বিপদসীমার দশমিক ২৮ সেন্টিমিটার নিচে প্রবাহিত হয়েছিল । এতে প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল ।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধিতে নীলফামারীর জলঢাকা ও ডিমলা উপজেলার তিস্তার তীরবর্তী ইউনিয়ন সমুহের নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করায় ওই এলাকার পরিবার সমুহ পানি বন্দি হয়ে পরেছে । এদিকে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় শুকনো খাবার ও স্যানিটেশন সমস্যায় পড়বে হাজারো মানুষ ।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের( পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আসফাউদ্দৌলা বলেন, ভারতের উজানে কয়েকদিনের অব্যাহত বৃষ্টিপাতের কারণে তিস্তা নদীর পানি বেড়েছে । পানি নিয়ন্ত্রণে ৪৪টি গেট খুলে দেওয়া হয়েছে ।
তিনি আরও বলেন, রবিবার বিকেল ৩টায় তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ২৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হতে দেখা গেছে । রাতে বিপদসীমা অতিক্রম করেছে ।

এদিকে কয়েকদিনের বৃষ্টিতে ও উজানের ঢলে ধু ধু বালুচর এলাকা এখন পানিতে ভরপুর । তিস্তার চর ও নিম্নাঞ্চলে পানি ঢুকে ফসলের ক্ষতি হয়েছে । বিশেষ করে বাদাম, পাট ও মৌসুমি ফসলের অনেক ক্ষতি হয়েছে ।
পাউবো ডালিয়া পয়েন্ট সূত্রমতে, রবিবার( ১৮জুন) বিকেলে থেকে পানি বাড়তে শুরু করে । সন্ধ্যা ৬টায় ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় । সন্ধ্যার পর কিছুটা কমতে শুরু করলে সোমবার ভোর থেকে আবারও বাড়তে শুরু করে পানি ।

নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছেন তিস্তাপাড়ের মানুষ । চর এলাকায় চাষাবাদের জন্য বসবাসরত লোকজন গ্রাম এলাকায় চলে আসছেন । নৌকায় করে চরের ফসল নিয়ে আসছেন উঁচু এলাকায় ।

সাইফুন বাজার তিস্তার চর এলকার কৃষক আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ কয়দিন ধরে বৃষ্টি হচ্ছে । কালকেও( গতকাল) পানি বাড়ছিল । আজ আবারও বাড়তে । আমাদের বাদাম, পাটক্ষেত ডুবে গেছে ।

জলঢাকার গোলমুন্ডা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর বলেন, রাত থেকে তিস্তায় পানি বাড়ছে । কিছু এলাকায় পানি ঢুকে পড়েছে বলে শুনেছি । এলাকা গুলোতে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে ।

জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা( ইউএনও) ময়নুল ইসলাম বলেন, তিস্তায় পানি বেড়েছে । নিচু এলাকায় পানি ঢুকছে । ইউপি চেয়ারম্যানদের তাদের এলাকার খোঁজখবর রাখতে বলা হয়েছে । তবে জরুরি যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমরা সজাগ রয়েছি ।

নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, গ্রীষ্ম মৌসুমে তিস্তার বিভিন্ন এলাকায় উন্নয়ন ও মেরামত প্রকল্পের কাজ করা হয়েছে ।

ভাঙনপ্রবণ এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছে । জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমরা প্রস্তুত রয়েছি ।